Logo

কাদিয়ানীদের আড্ডাখানা, মসজিদ হতে পারে না

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১
কাদিয়ানীদের আড্ডাখানা, মসজিদ হতে পারে না

একথা অধিক প্রসিদ্ধ যে, ইজমায়ে উম্মত অনুযায়ী মির্জা গোলাম আহমাদ কাদিয়ানী এর কার্যাবলী সম্পূর্ণ ইসলাম বহির্ভূত। ইসলাম ধর্মের সাথে তার কোন সম্পর্ক ছিল না। আইনানুযায়ী ১৯৭৪ সন এর সেপ্টেম্বর মাসে জাতির সামনে তার বাস্তবতা তুলে ধরে তাকে পাকিস্তানে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। যার উপর বিশ্বের প্রতিটি মুসলমানই একমত পোষণ করেছেন।

যার পরিপ্রেক্ষিতে আবশ্যকীয় ফলাফল এই ছিল যে, ইসলামের নিদর্শনসমূহকে পূঁজি করে মুসলমানদের ধোকা দেয়া থেকে তাদেরকে বিরত রাখা হবে। বিশেষকরে কোন ধর্মের ইবাদাতের স্থান সে ধর্মের একটি অন্নতম নিদর্শন। যার দ্বারা সে ধর্মালম্বীদের পরিচয় সু-স্পষ্টভাবে ফুটে ওঠে।

অতএব মসজিদ হল মুসলিমদের ইবাদাতের স্থান, যা শুধুমাত্র মুসলমানদের জন্যই বিশেষিত। তাই ভিন্ন কোন ধর্মালম্বীদেরকে এই সুযোগ কখনই দেয়া কাম্য নয় যে, তারা তাদের আড্ডাখানাকে মসজিদ নামকরণ দিয়ে মুসলিম সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে এবং মুসলিমদেরকে ধোকায় ফেলে তাদেরকে ভ্রান্ত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত থাকবে।

বিশেষকরে মির্জা গোলাম আহমাদ কাদিয়ানী ও তার ধর্মালম্বীদের কর্মকান্ড তো এমন যে, তারা নিজেদেরকে মুসলমান পরিচয় দিয়ে, মুসলিম মুখোশ ধারণ করে নির্দোষ মুসলমানদের ধোকা দিয়ে আসছে।

সেদিকে লক্ষ্য করে এখন যদি তাদের নাম মাত্র ধর্মশালাকে মসজিদ নামে নামকরণ করা হয় এবং এভাবেই যদি সমাজে এর প্রচলন চলতে থাকে, তাহলে একদিন মুসলমানদের জন্য এটি একটি ভয়ংকর রূপ ধারণ করবে। অতএব যদি আজও কোথাও মুসলিম নামধারি এই কাদিয়ানীদেরকে মুসলিম পরিচয়ে চলার অনুমতি দেয়া হয়, তাহলে সেটা হবে কুরআন-সুন্নাহ, শরীয়তে ইসলাম ও মুসলিম জনকল্যাণ এর প্রকাশ্য বিরুদ্ধাচরণ। আল্লাহ তা’আলা আমাদেরকে দ্বীনের সহীহ বুঝ দান করেন। আমীন।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন।

Theme Created By Tarunkantho.Com